• E-paper
  • English Version
  • শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৫:১৮ অপরাহ্ন



চুড়ান্ত আপিল শেষে প্রার্থিতা ফিরে পেলেন যারা

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • ৩৯ বার পঠিত
চুড়ান্ত আপিল শেষে প্রার্থিতা ফিরে পেলেন যারা
চুড়ান্ত আপিল শেষে প্রার্থিতা ফিরে পেলেন যারা

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল শুনানির দ্বিতীয় দিনে মধ্যাহ্ন বিরতি পর্যন্ত ৭৮ জনের আপিল নিষ্পত্তি করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এর মধ্যে ৫০ জনের প্রার্থিতা বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। বাকি ২৮ জনের মধ্যে ২৭ জনের প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ আসনে মেহেদী হাসানের আপিল শুনানি নিয়ে সিদ্ধান্ত স্থগিত রাখা হয়েছে।

শুক্রবার আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদার নেতৃত্বে চার নির্বাচন কমিশনার আপিল শুনানি নিচ্ছেন। সকাল ১০টায় শুরু হয় দ্বিতীয় দিনের এই আপিল শুনানি। সকাল সাড়ে ১১টা পর্যন্ত একটানা শুনানি নেওয়া হয়। এরপর কিছুক্ষণ বিরতি শেষে ফের শুনানি চলে দুপুর ১টা পর্যন্ত। জুমার নামাজ ও মধ্যাহ্ন বিরতির বিকেল ৩টায় ফের শুরু হয় আপিল শুনানি।

আপিলে বৈধ যারা

এদিন আপিলে যারা প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন তারা হলেন— ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ আসনে মো. জিয়া উদ্দিন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ আসনে মো. মুসলিম উদ্দিন, চট্টগ্রাম-৮ আসনে হাসান মাহমুদ চৌধুরী বৈধ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে গিয়াস উদ্দিন, চট্টগ্রাম-৭ আসনে আবু আহমেদ হাসনাত, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ আসনে আবদুল খালেক, কুমিল্লা-১ আসনে আলতাফ হোসাইন, চাঁদপুর-৫ আসনে খোরশেদ আলম খুশু, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে সাইফুল্লাহ (হুমায়ুন মিয়া), বরিশাল-২ আসনে এ কে ফাইয়াজুল হক, পটুয়াখালী-১ আসনে মো. আবদুর রশিদ, বরিশাল-১ আসনে বাদশ মিয়া, বরগুনা-১ আসনে মো. মতিয়ার রহমান তালুকদার, ভোলা-১ আসনে গোলাম নবী আলমগীর, বরিশাল-২ আসনে মাসুদ পারভেজ, ঝালকাঠি-১ আসনে বজলুল হক হারুন (প্রতিপক্ষ মনোনয়নপত্র বাতিল চেয়ে আবেদন করলে তা নামঞ্জুর করে ইসি), পটুয়াখালী-২ আসনে শহিদুল আলম তালুকদার, বরিশাল-৬ আসনে নাসরিন জাহান রত্না (প্রতিপক্ষের আবেদন নামঞ্জুর), বরিশাল-৪ আসনে পংকজ দেবনাথ (মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদের আবেদন নামঞ্জুর), পিরোজপুর-৩ আসনে মো. রুস্তম আলী ফারাজী, বরিশাল-২ আসনে সৈয়দ রুবিনা আক্তার, ভোলা-৪ আসনে নাজিম উদ্দিন আলম (প্রতিপক্ষের আপিল নামঞ্জুর), বরিশাল-৪ আসনে মাহবুবুল আলম।

আপিলে বৈধতা ফিরে পাওয়ার তালিকায় আরও আছেন— ঢাকা-১৬ আসনে আলহাজ্জ্ব এ কে এম মোয়াজ্জেম হোসেন, ঢাকা-৩ আসনে মো. সুলতান আহম্মদ খান, কিশোরগঞ্জ-২ আসনে মো. সালাউদ্দিন (রুবেল), কিশোরগঞ্জ-৬ আসনে মোহাম্মদ মুছা খান, টাঙ্গাইল-৮ আসনে মো. আবদুল লতিফ মিয়া, নরসিংদী-২ আসনে জাইদুল কবির, কিশোরগঞ্জ-১ আসনে খালেদ সাইফুল্লাহ সোহেল খান, গাজীপুর-৩ আসনে মো. জহিরুল হক মন্ডল বাচ্চু, মানিকগঞ্জ-২ আসনে মঈনুল ইসলাম খান, শরিয়তপুর-৩ আসনে সুশান্ত ভাওয়াল, কিশোরগঞ্জ-২ আসনে নুরুল ইসলাম, মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে মো. আবদুল্লাহ, কিশোরগঞ্জ-৩ আসনে ডা. এনামুল হক ইদ্রিস, নারায়গঞ্জ-৪ আসনে মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, টাঙ্গাইল-৬ আসনে আবুল কাশেম, টাঙ্গাইল-৭ আসনে সৈয়দ মজিবর রহমান, শরীয়তপুর-২ আসনে মো. বাদল গাজী, মাদারীপুর-১ আসনে মো. শাহনেওয়াজ, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন খোকা, টাঙ্গাইল-৬ আসনে ব্যারিস্টার এম আশফাকুল ইসলাম, টাঙ্গাইল-৬ আসনে মামুনুর রহমান, টাঙ্গাইল-৩ আসনে এস এম চান মিয়া, মাদারীপুর-২ আসনে আলামিন মোল্লা, ঢাকা-৮ আসনে এস এম সরোয়ার, মাদারীপুর-১ আসনে নাদিরা আক্তার ও ঢাকা-১ আসনে ফাহিমা হোসাইন জুবলি।

শুক্রবার সকালে পটুয়াখালী-২ আসনে শফিকুল ইসলামের আপিল শুনানি নিয়ে তার মনোনয়নপত্র বাতিলের সিদ্ধান্ত বহাল রাখলেও পরে তার মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেছে ইসি।

আপিলেও মনোনয়নপত্র বাতিল যাদে

আপিলের পরও যারা প্রার্থিতা ফিরে পাননি, তারা হলেন- চট্টগ্রাম-৬ (রাউজান) আসনে সামির কাদের চৌধুরী (গিয়াস কাদের চৌধুরীর ছেলে), ফেনী-৩ আসনে আবদুল লতিফ জনি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ মো. শাহজাহান, কুমিল্লা-২ আসনে আব্দুল মজিদ, বরিশাল-৬ আসনে ওসমান হোসেইন, পিরোজপুর-৩ আসনে ডা. সুধীর রঞ্জন বিশ্বাস, ঝালকাঠি-১ আসনে মো. মনিরুজ্জামান, পটুয়াখালী-১ আসনে রুহুল আমিন হাওলাদার, পটুয়াখালী-২ আসনে মিজানুর রহমান খান, ভোলা-৪ আসনে এম এ মান্নান হাওলাদার, ঝালকাঠি-১ আসনে মো. শাহজালাল শামীম, পিরোজপুর-১ আসনে মনিমোহন বিশ্বাস, ঝালকাঠি-১ আসনে ইয়াসমিন আক্তার পপি ও ভোলা-২ আসনে হুমায়ুন কবির।

এই তালিকায় আরও আছেন, নরসিংদী-২ আসনে আলতামাস কবীর, কিশোরগঞ্জ-৪ আসনে সুরঞ্জন ঘোষ, কিশোরগঞ্জ-৩ আসনে মো. আম্মান খান, শরীয়তপুর-১ আসনে আলমগীর হোসেন, ঢাকা-৮ আসনে আরিফুর রহমান, মানিকগঞ্জ-১ আসনে আতোয়ার হোসেন, কিশোরগঞ্জ-২ আসনে মো. আনিসুজ্জামান, ঢাকা-১৭ আসনে মো. আরিফুজ্জামান খোকন, ঢাকা-৮ আসনে মেজর (অব.) মামুনুর রশীদ, গোপালগঞ্জ-১ আসনে শামসুল আলম খান চৌধুরী, কিশোরগঞ্জ-৩ আসনে মো. মনিরুজ্জামান নয়ন ও নারায়ণগঞ্জ-১ আসনে রেহান আফজাল।

আজ শুক্রবার ইসিতে ১৫১ থেকে ৩০০ পর্যন্ত ক্রমিকের দেড়শ প্রার্থীর আপিল শুনানি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। এর আগে, বৃহস্পতিবার আপিল শুনানির প্রথম দিনে ১৬০ জনের আবেদনের শুনানি হয়েছে। এদের মধ্যে ৮০ জন তাদের প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন, ৭৬ জনের আবেদন নামঞ্জুর করা হয়েছে এবং ৪ জনের আবেদন স্থগিত রাখা হয়। বৃহস্পতিবার ১৬০ জনের মধ্যে ৫৯ জন প্রার্থী ছিল বিএনপির, এদের মধ্যে ৩৭ জন প্রার্থী তাদের প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন। এছাড়াও ৪০ জন স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে ১৩ এবং জাতীয় পার্টির ১৬ জন প্রার্থীর মধ্যে ৯ জন প্রার্থিতা ফিরে পান। বাকিরা অনান্য দলের।

গত ৮ নভেম্বর তফসিল ঘোষণা করে ইসি, পরে ১২ নভেম্বর পুনঃতফসিল ঘোষণা করা হয়। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী গত ২৮ নভেম্বর ছিল মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিন। গত ২ ডিসেম্বর ছিল মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাইয়ের শেষ দিন। এদিন সারা দেশে দাখিল করা ৩ হাজার ৬৫টি মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের পর ২ হাজার ২৭৯টি মনোনয়নপত্র বৈধ এবং ৭৮৬টি মনোনয়ন পত্র বাতিল ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা। বাতিল হওয়া প্রার্থীরা তাদের প্রার্থিতা ফিরে পেতে ৩ ডিসেম্বর থেকে ৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৫৪৩ জন আপিল।

Facebook Comments



নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..